You are currently viewing বিজনেস ইমেইল কি? বিজনেস ইমেইল এর সুবিধা কি?

যে কোন ব্যবসা সম্প্রসারণ করার জন্য ইন্টারনেট একটি গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম। আগে একটি বিজনেসের মার্কেটিং করা অনেক ব্যায়বহুল ছিল। কিন্তু অনলাইনে সেই মার্কেটিং সহজে এবং কম খরচেই করা যায়। তবে আপনার বিজনেসের সফলতা অনেকটুকুই কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের উপর নির্ভর করে। যেমন আপনার বিজনেসের একটি ভালো ব্র্যান্ড নেম এবং ওয়েব অ্যাড্রেস থাকতে হবে। এছাড়া যখন কোন কাস্টমার আপনার সাথে ব্যাবসায়িক সম্পর্ক স্থাপন করতে চাইবে তখন তার কাছে আপনার প্রফেশনালিজম প্রকাশ করার জন্য Business Email থাকতে হবে। মূলত বিজনেস ইমেইল কি, এটি কিভাবে কাজ করে এবং কেন আমরা ফ্রী ইমেইল ইউজ না করে বিজনেস ইমেইল ইউজ করবো তা নিয়ে আমাদের পরিষ্কার ধারনা থাকেনা। আমাদের আজকের লেখায় আমরা বিজনেস ইমেইল নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবো। 

বিজনেস ইমেইল কি?

একটি বিজনেস পরিচালনা করার জন্য আমাদের সবসময় ক্লাইন্ট ও কাস্টমারের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে চলতে হয়। দ্রুত গতিতে বার্তা আদান-প্রদান করার জন্য ইমেইল একটি আদর্শ মাধ্যম। তাই প্রতিটি অনলাইন বা অফলাইন বিজনেস ওনার তাদের সাথে যোগাযোগ করার জন্য ফোন নাম্বারের পাশাপাশি ইমেইল অ্যাড্রেস দিয়ে থাকে। 

আমরা কোন টাকা খরচ না করে ফ্রীতে Gmail, Yahoo, Yandex, Outlook এর মত ইমেইল সার্ভিস ব্যবহার করতে পারি। পার্সোনাল ক্ষেত্রে ইউজ করার জন্য এসকল ফ্রী ইমেইল সার্ভিস সবথেকে বেশি উপযুক্ত। কিন্তু যখনি ব্যাবসায়িক দিক থেকে যোগাযোগের কথা আসে তখন এসব ফ্রী ইমেইল সার্ভিস তেমন একটা কাজে লাগেনা। কারন ফ্রী ইমেইল সার্ভিস গুলোর অনেক লিমিটেশন থাকে অন্যদিকে এটি প্রফেশনাল নয়। 

ধরুন আপনার মেইল বক্সে অ্যামাজন থেকে একটি মেইল আসলো। এখন সেই মেইল এর অ্যাড্রেস যদি contact@amazon.com না হয়ে contact@gmail.com হয় তাহলে কোন অ্যাড্রেসকে আপনি ট্রাষ্ট করবেন? যদি মেইলটি অ্যামাজন থেকে আসে তাহলে অবশ্যই @ এর পর থাকা অ্যামাজনের ডোমেইন নেম দেখেই আপনি মেইলটি ট্রাষ্ট করবেন। 

Business Mail আর পার্সোনাল মেইল এর মধ্যকার প্রধান পার্থক্য এর গঠন প্রণালীতে। পার্সোনাল মেইল এর গঠন হলো yourname@gmail.com/yahoo.com/hotmail.com ইত্যাদি। এখানে @ এর আগে আপনি যে নাম দিবেন তা অ্যাইভেলেবল থাকলে তা অ্যাড হবে, আর না হলে মেইল সার্ভিস গুলো অটো জেনারেট করে অ্যাড করে দেবে। এতে আপনি ইচ্ছামতো মেইল তৈরি করে নিতে পারবেন না। তাছাড়া ফ্রী মেইলে আপনার বিজনেসের স্বতন্ত্রতা থাকে না। অর্থাৎ ফ্রী মেইল আপনার বিজনেসের পরিচয় বহন করবে না। সে দিক থেকে বিজনেস মেইলে আপনার ব্র্যান্ড নেম থাকার কারনে তা সরাসরি বিজনেসের পরিচয় বহন করে।   

মোটকথা বিজনেস ইমেইল হলো এমন একটি মেইল সিস্টেম যেখানে @ এর পর আপনার ব্র্যান্ড এর এক্সটেনশন সহ ডোমেইন নেম থাকবে। যেমন info@yourdomain.com, info@brandname.com/net/org ইত্যাদি। ধরুন আপনার বিজনেসের ডোমেইন নেম itnuthosting.com তাহলে আপনার বিজনেস ইমেইল হবে info@ithuthosting.com, support@itnuthosting.com ইত্যাদি।  

বিজনেস মেইল এর কাজ কি?

Business Mail অনেক কাজে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। এটি আপনার ব্র্যান্ডের পরিচয় বহন করে। আপনার বিজনেসের প্রফেশনালিজম রক্ষা করে। চলুন বিজনেস মেইল এর কাজ সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেই। 

ইমেইল মার্কেটিং

ইমেইল মার্কেটিং একটি সময়োপযোগী অনলাইন মার্কেটিং পদ্ধতি। এর মাধ্যমে সহজেই সম্ভাব্য কাস্টমারের কাছে পণ্য পৌঁছে দেওয়া যায়। ইমেইল মার্কেটিং করার জন্য আমরা ফ্রি মেইল সার্ভিস বা বিজনেস মেইল সার্ভিস দুটোই ব্যবহার করতে পারি। 

কিন্তু আপনার মেইল যদি কোম্পানির বা বিজনেসের ব্র্যান্ড মেইল বাদে কোন জিমেইল থেকে সেন্ড হয় কোন কাস্টমার সেটিকে তেমন গুরুত্ব দেবে না। এমনকি আপনি আপনার নিজের মেইল বক্স চেক করে দেখেন আপনি কোন ধরনের ইমেইল বিশ্বাস করেন আর কোন ধরনের করেন না। আশাকরি মুল বিষয়টি ধরতে পেরেছেন। এছাড়া ফ্রী মেইল সার্ভিসে অনেক লিমিটেশন যেমন আইপি ব্লক, স্প্যাম বক্সে মেইল যাওয়া সহ অনেক সমস্যা হয়। বিজনেস ইমেইলে এধরনের সমস্যা খুব বেশি হয়না হয়না বা সমস্যা হলেও মেইল মেইল প্রোভাইডারের সহয়তা নিয়ে খুব দ্রুতই সমাধান করে নেয়া যায় ।

প্রফেসনালিজম

গবেষণায় দেখা গেছে যে ইমেইল তার এক্সটেনশন হিসেবে ব্র্যান্ড নেম ইউজ করে তা সাধারন মেইল থেকে বেশি প্রফেশনাল। কারন এতে কাস্টমারের কাছে বিজনেসের একটি ভ্যালু তৈরি হয় এবং তারা সহজেই ব্র্যান্ডটিকে বিশ্বাস করে। এতে উক্ত ব্র্যান্ড মার্কেটে একই ধরনের অন্যান্য বিজনেস থেকে অনেক এগিয়ে থাকে। তাছাড়া প্রফেশনালিজম রক্ষা করার কারনে নতুন ক্লাইন্ট পাওয়া এবং বিজনেস ধরে রাখা সহজ হয়। 

বিজনেস প্রমোশন

Business Mail বাড়তি খরচ ছাড়াই ব্র্যান্ডের প্রমোশন করতে সহায়তা করে। যেমন ধরুন আপনার কাছে আপনার বিজনেসের জন্য সম্ভাব্য কাস্টমারের ইমেইল লিস্ট আছে। এখন আপনি চাচ্ছেন যে তাদের কাছে আপনার ব্র্যান্ডকে প্রমোট করবেন। এখন আপনি যদি বিজনেস ইমেইল যেমন promotion@brandname.com দিয়ে আপনার প্রমোশনাল ইমেইল সেন্ড করেন তাহলে এনগেজমেন্ট অনেক বেশি পাবেন। কারন শুধু মেইল অ্যাড্রেস দেখেই আপনার বিজনেস সম্পর্কে ধারনা পাওয়া যাবে। তাছাড়া এরকম মেইল স্প্যাম হওয়ার সম্ভাবনা খুব কম হওয়ার কারনে কাস্টমার তা ওপেন করতে দ্বিধা করে  না। 

বিজনেস মেইল এর সুবিধা কি?

নো লিমিটেশনঃ বিজনেস ইমেইল এর সুবিধা হলো একসাথে অনেকগুলো মেইল সেন্ড করার কারনে আপনার অ্যাকাউন্ট লিমিট হয়ে যাবে না। আপনার আইপি ব্লক করা হবে না এবং মেইল গুলো স্প্যাম বক্সে জমা হবে না। তাছাড়া আপনি আপনার হোস্টিং স্পেস অনুযায়ী আনলিমিটেড ইমেইল সেন্ড করতে পারবেন। 

বিশ্বাসযোগ্যতাঃ বিজনেস মেইল ব্র্যান্ড এর বিশ্বাসযোগ্যতা বৃদ্ধি করে। যখন কোন কাস্টমারের কাছে এরকম প্রফেশনাল ইমেইল থেকে কোন মেইল যায় তখন উক্ত কাস্টমার বিজনেসের সিরিয়াসনেস বুঝতে পারে। যে কারনে উক্ত বিজনেসের সাথে সম্পর্ক স্থাপন করতে তার কোন সমস্যা বা মনে সন্দেহ থাকেনা। 

দ্রুতগতিসম্পন্নঃ Business Mail সেন্ড করা এবং রিসিভ করার পুরো প্রসেস অনেক দ্রুত সম্পাদিত হয়। যে কারনে একই সাথে হাজার হাজার কাস্টমারের কাছে পণ্য বা নিউজ পৌঁছে দেওয়া যায়। এই একই কাজ কোন ফ্রী মেইল সার্ভিস দিয়ে করার কথা চিন্তাও করা যায়না। 

বিজনেস মেইল এর অসুবিধা কি?

মূল্যঃ বিজনেস ইমেইল তৈরি এবং পরিচালনা করার জন্য আমাদের ডোমেইন এবং হোস্টিং কিনতে হয়। যা প্যাকেজ আকারে বিভিন্ন দামের হয়ে থাকে। যেহেতু ফ্রীতেই ইমেইল সেন্ড করা যায় সেহেতু এভাবে ইমেইল সেন্ড করতে আলাদা বাজেটের প্রয়োজন পড়ে। 

স্প্যামঃ প্রমোশনাল ইমেইল গুলো অনেক সময় স্প্যাম বক্সে জমা হয়। যে কারনে টার্গেটেড কাস্টমারের কাছে সার্ভিস পৌঁছে দেওয়া হয়না। এতে ইমেইল মার্কেটিং এর সুফল পাওয়া যায়না।  

বিজনেস মেইল কেন ব্যবহার করবেন?

Business Mail ব্যাবহার করার অনেক গুলো প্রয়োজনীয়তা আছে। একটি বিজনেস ইমেইল ব্র্যান্ডের ভ্যালু অনেক অনেক গুন বৃদ্ধি করে দেয়। কাস্টমারের সাথে সু-সম্পর্ক তৈরি করতে সাহায্য করে। সবধরনের কাস্টমার সার্ভিস একটি নির্দিষ্ট মেইলে হ্যান্ডেল করা হয়। 

যে প্রতিষ্ঠানের ডেডিকেটেড মেইল থাকে সেখানে কাস্টমার কোন সন্দেহ রাখে না। তাছাড়া কাস্টমারকে অতি দ্রুত ইনফরমেশন এবং নতুন প্রোডাক্ট বা সার্ভিস সম্পর্কে জানানো যায়। একই সাথে সকল ধরনের ইমেইল ম্যানেজ করা যায়। বিজনেসের প্রফেশনালিজম এর বহিঃপ্রকাশ ঘটে। মার্কেটে কম্পিটিশনে সহজেই টিকে থাকার জন্য বিজনেস ইমেইল সহায়তা করে। 

কোথায় থেকে বিজনেস মেইল কিনবেন?

বিজনেস মেইল কেনার আগে আপনাকে কিছু সাধারন বিষয় মাথায় রাখতে হবে। যেমন আপনি যে কোম্পানি থেকে ডোমেইন হোস্টিং কিনেছেন সে কোম্পানিতে মেইল সার্ভার হোস্ট করাই বুদ্ধিমানের কাজ হবে। এতে আপনি সকল ধরনের টেকনিক্যাল সাহায্য পাবেন। আমরা সাজেস্ট করবো আপনি IT Nut Hosting এর বিজনেস ইমেইল প্যাকেজগুলো ট্রাই করে দেখতে পারেন।

বর্তমান যুগে নিজের বিজনেসের অনলাইনে একটি শক্ত পরিচয় গড়ে তুলতে বিজনেস মেইলের বিকল্প নেই। এর নানাবিধ সুবিধা থাকার কারনে সকল বিজনেস ওনার তাদের সার্ভিসের জন্য বিজনেস মেইল তৈরি করছে। আপনার নিজের যদি কোন সার্ভিস থেকে থাকে তাহলে অতিসত্বর নিজের ব্র্যান্ডের নামে একটি Business Mail তৈরি করে ফেলুন। আশাকরি লেখাটি পড়ে বিজনেস মেইল সম্পর্কে আপনি প্রয়োজনীয় সবকিছু জানতে পেরেছেন। যদি কোন প্রশ্ন থাকে তাহলে অবশ্যই আমাদের কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না। 

Leave a Comment