You are currently viewing রিসেলার হোস্টিং এর সুবিধা, অসুবিধা কি?

রিসেলার হোস্টিং এর সুবিধা

আপগ্রেডেবল সার্ভার রিসোর্স 

আমরা জানি একটি সার্ভারে যত বেশি রিসোর্স ইউজ করার সুবিধা থাকবে সেটি তত বেশি ভালো সার্ভিস দেবে। সাধারণত হোস্টিং কোম্পানিগুলো প্রতিটি হোস্টিং প্যাকেজের জন্য নির্ধারিত রিসোর্স বরাদ্দ করে থাকে। 

তবে যেহেতু রিসেলার হোস্টিং এর উদ্দেশ্য হলো প্ল্যান আকারে ভাগ করে কাস্টমারেকে প্রোভাইড করা, সেক্ষেত্রে রিসোর্স শেষ হয়ে গেলে বা কোন সমস্যা হলে তা দ্রুত আপগ্রেড করে নেয়া যায়। রিসেলার হোস্টিং এ ইউজারের চাহিদা বেড়ে গেলে অতিরিক্ত চাপ মানিয়ে নেওয়ার জন্য রিসোর্স যেমন: স্টোরেজ, র‍্যাম এবং প্রসেসর পাওয়ার দ্রুত বৃদ্ধি করে নেওয়া যায়।  

প্রয়োজনীয় সফটওয়্যার ইউজের সুবিধা

একটি হোস্টিং ব্যবসা পরিচালনা করতে গেলে কিছু প্রয়োজনীয় সফটওয়্যার এর প্রয়োজন হেয়, যেমন প্রতিটা ইউজারকে তার হোস্টিং ম্যানেজ করার জন্য কন্ট্রোল প্যানেল দিতে হয়, সার্ভারের মোট রিসোর্সকে প্ল্যান আকারে ভাগ করার জন্য বিভিন্ন সফটওয়্যার ব্যবহার করতে হয়। ইউজারের বিল, প্ল্যান, সাপোর্ট টিকিট সহ অন্যান্য কর্পোরেট সাপোর্ট দেওয়ার জন্য অটোমেটেড সফটওয়্যার এর প্রয়োজন হয় । 

এই সব সুবিধা রিসেলার হোস্টিং এ সহজেই পাওয়া যায়। যেমন ক্লায়েন্ট এবং বিলিং ম্যানেজ করার জন্য জনপ্রিয়  বিলিং সফটওয়্যার WHMCS ব্যবহার করা হয়।

ফ্লেক্সিবল হোস্টিং প্ল্যান তৈরি 

কাদামাটিকে যেমন ইচ্ছামতো আকার প্রদান করা যায় রিসেলার হোস্টিং ঠিক সেই রকম। এখনে কাস্টমারের চাহিদার অনুযায়ী রিসোর্স দিয়ে বাজেট নির্ভর প্ল্যান তৈরি করে দেয়া যায়। 

যেমন ধরুণ আপনি একটি ব্লগ ওয়েবসাইট তৈরি করবেন। এখন একটি ব্লগ ওয়েবসাইটে কি পরিমাণ রিসোর্স খরচ হবে তা কিন্তু ওয়েবসাইট দেখে আন্দাজ করেই বলে দেওয়া সম্ভব। রিসেলার হোস্টিং এ এভাবে প্রয়োজন মত ফ্লেক্সিবল হোস্টিং প্ল্যান তৈরি করা যায় সহজেই। WHMCS এই সফটওয়্যারটি এই পুরো কাজ অনেক সহজে করে দিয়েছে । 

ইউজারের অ্যাকাউন্টের নিয়ন্ত্রণ 

WHMCS একটি ওয়েব হোস্টিং বিলিং এবং অটোমেশন সফটওয়্যার, এর প্রতিটি ফিচার ওয়েব হোস্টিং ম্যানেজ করার জন্য অতি গুরুত্বপূর্ণ। যেমন আপনার রিসেলার হোস্টিং এ যদি ১০০ জন ইউজার থাকে তাহলে প্রতিজনের বিল, পেমেন্ট এবং অ্যাক্টিভিটি ম্যানুয়ালি পর্যবেক্ষণ করা সম্ভব না। 

কারণ এতোগুলো ডাটা একসাথে যাচাই বাছাই করে অ্যাকশন নেওয়া অনেক কষ্টকর একটি বিষয়। সে কারণে WHMCS টুল ইউজ করে অনেক সহজেই ইউজারদের অ্যাকাউন্ট নিয়ন্ত্রণ করা যায়। 

ইউজার এক্সপেরিয়েন্স

রিসেলার হোস্টিং প্ল্যানগুলো ইউজার ফ্রেন্ডলি। সহজে কাস্টমাইজ করা যায় এবং যে কোন সময় রিসোর্স আপগ্রেড করা যায়। এছাড়া ইউজারের জন্য আলাদা আলাদা প্ল্যান থাকায় বাজেটের উপর নির্ভর করে প্ল্যান বাছাই করা যায়। শেয়ারর্ড হোস্টিং থেকে কাজে এবং উদ্দেশ্যে অনেকটাই আলাদা। 

রিসেলার হোস্টিং এর অসুবিধা

রিসেলার হোস্টিং এর নানারকম সুবিধার মধ্যে অনেক অসুবিধাও আছে। চলুন সেগুলো জেনে নেওয়া যাক। 

বেশি প্রাইস

প্রাইসের দিক থেকে রিসেলার হোস্টিং সাধারণ শেয়ারর্ড হোস্টিং এর তুলনায় একটু ব্যায়বহুল। গতানুগতিক শেয়ারর্ড হোস্টিং এর যে দাম নির্ধারণ করা থাকে সে দিক দিয়ে রিসেলার হোস্টিং এর দাম অনেক বেশি, কারণ রিসেলার হোস্টিং একপ্রকার বাল্ক এমাউন্টে নেয়া হয়।

দূর্বল পারফরমেন্স

ডেডিকেটেড সার্ভার না হওয়ায় এতে অনেক ধরনের পারফরমেন্স ইস্যু থাকে। যেমন ওয়েবসাইট লোড স্পীড অনেক কম থাকে। ভিজিটরের চাপ বেড়ে গেলে পুরো সার্ভার স্লো কাজ করে। তবে রিসেলার ওনার যদি সল্প পরিমাণ সাইট হোস্টং করে সার্ভার ওভারলোড মুক্ত রাখে তাহলে এই সমস্যাগুলো থেকে বাচা সম্ভব।

সার্ভার আপগ্রেড করার ঝামেলা 

আমরা আগেই জেনেছি রিসেলার হোস্টিং এর মাধ্যমে ইন্ডিভিজুয়াল কাস্টমারকে সার্ভার স্পেস দেওয়া হয়। এতে যত বেশি কাস্টমার বাড়তে থাকে তত বেশি স্পেস সহ রিসোর্স এর প্রয়োজন পড়ে। যার ফলে সার্ভার আপগ্রেড করার প্রয়োজন হয়।

যদিও সার্ভার আপগ্রেড করার প্রক্রিয়া তেমন বড় ইফেক্ট ফেলে না কিন্তু সেখানে একটু ভুল হলে উক্ত Reseller Hosting এর আন্ডারে থাকা সকল সাইট ডাউন হয়ে যাবে। তাছাড়া টেকনিক্যাল হেল্পের জন্য যে কোম্পানি থেকে রিসেলার নেওয়া হয় তাদের ফুল সাপোর্টের প্রয়োজন পড়ে। 

মেইনটেনেন্স রিস্ক

একটি সিঙ্গেল সার্ভার ম্যানেজ করার জন্য আমাদের তেমন বেশি কিছু করতে হয়না। যেমন একটি শেয়ারর্ড হোস্টিং নেওয়ার পর হোস্টিং প্রোভাইডার কোম্পানি সবকিছু সেটআপ করে দেয়। এতে আপনাকে তেমন কিছু করতে হয়না। কিন্তু রিসেলার হোস্টিং এর ক্ষেত্রে আপনার আন্ডারে যতগুলো ইউজার থাকবে তাদের সবার দায়িত্ব আপনাকে পালন করতে হবে। 

সার্ভার সেটআপ থেকে শুরু করে সার্ভার রক্ষণাবেক্ষণ সহ সব কিছু আপনার নিজের করতে হবে। এমনকি টেকনিক্যাল সমস্যা গুলোর সমাধান মূল কোম্পানির সাথে সাথে আপনাকেও সমাধান করতে হবে। এই সব কিছু মিলিয়ে রিসেলার হোস্টিং এ মেইনটেনেন্স রিস্ক থেকেই যায়। 

ট্রাস্ট ইস্যু

যেহেতু রিসেলার হোস্টিং কোম্পানির মূল জায়গা থেকে আসে না সেহেতু এতে ট্রাস্ট ইস্যু থেকেই যায়। যেমন রিসেলার হোস্টিং এর সকল দায়ভার এবং সিকিউরিটি থাকে যে রিসেলার প্যাকেজটি কিনেছে তার উপর। 

এখন সে যেহেতু সরাসরি কোম্পানির লোক না সেহেতু ট্রাস্ট না করাটা অস্বাভাবিক নয়। তবে বর্তমান সময়ে প্রতিটি রিসেলার হোস্টিং এর কার্যক্রম মূল কোম্পানি পরোক্ষভাবে মনিটরিং এর মধ্যে রাখে। 

কেন রিসেলার হোস্টিং ব্যবহার করবেন?

সবার প্রথমে কম পুঁজিতে নিজের ডোমেইন হোস্টিং বিজনেস চালু করার জন্য Reseller Hosting সবথেকে ভালো মাধ্যম। বিশেষ করে আপনার হাতে যদি নিয়মিত ডোমেইন এবং হোস্টিং বেচা কেনা করার মত সুযোগ থাকে তাহলে আপনার অন্যান্য হোস্টিং প্যাকেজের থেকে রিসেলার হোস্টিং প্যাকেজ সিলেক্ট করা সবথেকে ভালো হবে। 

এতে আলাদা আলাদা হোস্টিং প্যাকেজ কিনতে গেলে যে খরচ হবে তার অনেকটুকু রিসেলার প্যাকেজে কমে যাবে। একই সাথে অনেকগুলো সার্ভার ম্যানেজ করতে পারবেন যা খরচ ও সময় সেভ করবে। সিকিউরিটি এবং টেকনিক্যাল হেল্প বেশি পাবেন কারণ হোস্টিং কোম্পানি গুলো তাদের বিজনেস সম্প্রসারণের জন্য রিসেলার প্যাকেজ সেল করে থাকে। যাতে তাদের সার্ভিস ঠিক থাকে এ জন্য ভালো সার্ভিস প্রোভাইড করে থাকে। এসকল বিষয় বিবেচনা করে রিসেলার হোস্টিং নেওয়া আপনার জন্য বেশি ভালো হবে। 

Leave a Comment