You are currently viewing ভিপিএস হোস্টিং এর সুবিধা, অসুবিধা

ভিপিএস হোস্টিং এর সুবিধা

ভিপিএস হোস্টিং এর অনেক গুলো সুবিধা আছে। নিচে তা পর্যায়ক্রমে আলোচনা করা হলো। 

মোটামুটি সস্তাঃ ভিপিএস সার্ভারের দাম শেয়ারর্ড হোস্টিং থেকে বেশি হলেও ডেডিকেটেড হোস্টিং এর  থেকে অনেক কম। তবে কম দাম দিয়েও কিন্তু একটি ডেডিকেটেড সার্ভারের মত সুবিধা ভোগ করা যায়। যা কমদামে সর্বোচ্চ পরিমাণ সুবিধা পেতে সাহায্য করে। 

কন্ট্রোলঃ ভিপিএস সার্ভার Un-managed, managed এই দুই প্রকারের হয়ে থাকে। আন-ম্যানেজ এ আপনাকে হোস্টিং কোম্পানি কোনকিছু সেটআপ করে দেবে না। ওএস সেটআপ, কন্ট্রোল প্যানেল, প্রয়োজনীয় সফটওয়্যার সহ সবকিছুই আপনাকে করতে হবে। অন্যদিকে ম্যানেজড ভিপিএস এ হোস্টিং প্রোভাইডার সম্পূর্ণ কমপ্লিট করে দেবে। যারা একটু নন-টেকি তাদের জন্য ম্যানেজড প্লান সবথেকে বেশি ভালো হবে। আপনি চাইলে SSH বা কমান্ড লাইন ইউজ করে অ্যাক্সেস সুবিধা ভোগ করতে পারবেন।

ডেডিকেটেড আইপি এবং সফটওয়্যার অ্যাক্সেসঃ ভিপিএস হোস্টিং ডেডিকেটেড আইপি অ্যাক্সেস দেয়। যে কারনে একটি ভিপিএন সেটআপ করার থেকে ভিপিএস সার্ভিস ইউজ করা বেশি সুবিধাজনক। এছাড়া আপনি লিনাক্স বা উইন্ডোজ ওএস যাই হোক, প্রয়োজন মত সফটওয়্যার ইন্সটল করতে পারবেন।  

কাস্টমাইজেশনঃ ভিপিএস সার্ভারের সৌন্দর্য হলো এর সুপার ইউজার লেভেলের কাস্টমাইজেশন সুবিধা। অর্থাৎ আপনি ইচ্ছামত অ্যাপ্লিকেশন ইন্সটল দিতে পারবেন। নিজের ইচ্ছামত কাজ করার এনভায়রনমেন্ট তৈরি করে নিতে পারবেন। 

লাইটওয়েটঃ যেহেতু ডেডিকেটেড সার্ভারে পার্সোনাল পিসি হিসেবে কাজ করে সেহেতু এর নিজস্ব সিপিইউ, র‍্যাম এবং স্টোরেজ থাকে। যে কারণে সার্ভার রিকোয়েস্ট টাইম, ইন্টারঅ্যাকশন টাইম সবকিছু দ্রুত প্রসেস হয়। যে কারণে VPS সার্ভার লাইটওয়েট হয়ে থাকে এবং এখানে হোস্ট করা ওয়েবসাইট অনেক ফাস্ট লোড হয়। 

সিকিউরিটিঃ ভিপিএস অনেক সিকিউর একটি সিস্টেম। হোস্টিং সার্ভিস প্রোভাইডারগুলো তাদের প্যাকেজের সাথে ফ্রী SSL প্রদান করে থাকে। যা ব্রাউজার এবং সার্ভারের মধ্যকার আদান-প্রদান করা ডাটা এনক্রিপ্ট করে। কোন কারনে উক্ত ডাটা কেউ অ্যাক্সেস করলেও সে মূল ডাটা দেখতে না পেয়ে এমক্রিপ্টেড ডাটা দেখতে পায়।  তাছাড়া কন্ট্রোল সাইট ওনারের কাছে থাকার কারণে সে তাৎক্ষণিক অ্যাকশন নিতে পারে। তাছাড়া সিকিউরিটি সম্পর্কিত টুল যেমন পেইড ফায়ারওয়াল ইউজ করা যায় জন্য সিকিউরিটির দিক দিয়ে ভিপিএস শেয়ারর্ড হোস্টিং থেকে অনেক উন্নত। 

ভিপিএস  হোস্টিং এর অসুবিধা কি?

যদিও ভিপিএস হোস্টিং এর অনেকগুলো সুবিধা আছে কিন্তু এর কিছু অসুবিধাও আছে। চলুন অসুবিধাগুলো জেনে নেই। 

দামঃ যদিও ভিপিএস সার্ভারের দাম ডেডিকেটেড সার্ভারের থেকে কম কিন্তু শেয়ারর্ড সার্ভারের থেকে অনেক বেশি। অনেকসময় ভিপিএস সার্ভার অ্যাফরড করা অনেকের ক্ষেত্রে সম্ভব হয়ে ওঠেনা। তাই বলা যায় বাজেটের দিক থেকে সমস্যা থাকলে ভিপিএস সার্ভার কেনা অনেক বড় সমস্যা। 

টেকনিক্যাল নলেজঃ শেয়ারর্ড হোস্টিং ম্যানেজ করার থেকে একটি নন ম্যানেজড ভিপিএস সার্ভার ম্যানেজ করতে বেশি টেকনিক্যাল নলেজ প্রয়োজন পরে। কারণ এখানে অনেক টেকনিক্যাল কাজ আপনার নিজেকে করতে হতে পারে। সমস্যার সমাধান নিজের বের করে করে সমাধান করতে হতে পারে। যে কারণে টেক নলেজ না থাকলে ভিপিএস সার্ভার না ইউজ করাই ভালো। 

বরাদ্দকৃত রিসোর্স লিমিটঃ হোস্টিং প্রোভাইডার গুলো যে পরিমাণ লিমিট বরাদ্দ করে তা অনেক সময় সমস্যার সৃষ্টি করে। কারণ একই সার্ভারে থাকা ভিপিএস গুলোর মধ্যে কোন সার্ভার যদি বেশি রিসোর্স ইউজ করে তাহলে বাকি ভিপিএস গুলো রিসোর্স সমস্যায় পরে যাবে। 

কেন ভিপিএস হোস্টিং ব্যবহার করবেন?

ভিপিএস হোস্টিং ইউজ করার প্রধান কারণ হলো এর সুবিধা গুলো। যদিও এর কিছু অসুবিধা আছে কিন্তু এর সুবিধার কাছে অসুবিধা তেমন একটা ব্যাপার না। সিকিউরিটি, ফ্লেক্সিবিলিটি, পারফরমেন্স এসকল বিষয় বিবেচনা করলে VPS সার্ভার শেয়ারর্ড হোস্টিং থেকে অনেক উন্নত এবং অনেক এগিয়ে। 

ফাস্ট এবং রিলায়েবল সার্ভার স্পীড সহ অনেক বেশি স্টোরেজ সুবিধা পাওয়ার জন্য ভিপিএস বেস্ট। উপরে বর্ণিত বিষয়গুলো বিবেচনা করলেই বুজতে পারবেন VPS সার্ভার ইউজ করা কেন উচিত। 

Leave a Comment